বাকেরগঞ্জে আওয়ামীলীগের বয়সের ভারে নুয়ে পরা নেতৃত্বের মাঝে উজ্জিবীত তরুণ নেতৃত্বদানে ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জু ‘ই একমাত্র ভরসা।

নিজস্ব প্রিতেবেদক, বরিশাল

বরিশাল-৬ (বাকেরগঞ্জ) আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়নে জনমত জরীপে সকলকে ছাপিয়ে এগিয়ে ইঞ্জি: মঞ্জুরুল হক  (মঞ্জু ) ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-৬ (বাকেরগঞ্জ) আসনে আওয়ামীলীগ-বিএনপির মনোনয়ন পেতে একাধিক প্রার্থী দৌড়ঝাঁপ শুরু করলেও প্রতিদ্বন্দ্বী নেই জাপার কোন প্রার্থী। নির্বাচনকে সামনে রেখে বাকেরগঞ্জ-৬ আসনটি নিয়ে দলীয় নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষ রাজনৈতিক হিসেব-নিকেশ শুরু করে দিয়েছেন। আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন পেতে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতিমধ্যেই দৌড়ঝাঁপ শুরু করে দিয়েছেন।বিগত ১ বছর ধরে শুভেচ্ছা পোস্টার ও লিফলেটের আড়ালে শুরু করেছেন প্রচার-প্রচারণা ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ে লবিং। নিজের অবস্থান শক্তিশালী করতে গঠন করেছন তৃণমূল পর্যায়ে দলীয় কমিটি। চালিয়ে যাচ্ছেন কর্মী সমাবেশ ও গণসংযোগ।তবে বরিশাল -৬ আসনে আওয়ামীলীগের জন সম্পৃক্ত বর্তমান নেতার খুব অভাব বলে মনে করেন স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষক গন।

 

এ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম নাসরিন জাহান রতনা এমপি গত ৯ বছরে এলাকায় ঘোষনার উন্নয়ন করেছেন বটে আসলে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে তার যোগাযোগ শুন্যের কোটায়। অবহেলিত এই জনপদের কোন সার্বিক উন্নয়ন হয়নি। গত ৯ম ও ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পান উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য মেজর জেনারেল অবঃ আবদুল হাফিজ মল্লিক। কিন্তু মহাজোটের আসন ভাগাভাগির প্রশ্নে এ আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিতে হয়। সাবেক এমপি মরহুম আলহাজ্ব সৈয়দ মাসুদ রেজার মৃত্যুর পর এ আসনে আওয়ামীলীগের কেউ এমপি নির্বাচিত হতে পারেনি।
ভোটবিহীন নির্বাচনের প্রার্থী ও বিতর্কিত ব্যক্তিকে নেতা হিসেবে স্থানীয় জনগন চায়না এটা নেতাকর্মীদের বক্তব্যে স্পষ্ট।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির যেহেতু একক ভাবে নির্বাচন করবে সেহেতু আওয়ামীলীগের প্রার্থী নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে জটিলতা।দলের প্রসিডিয়াম সদস্য অবঃ মেজর জেনারেল হাফেজ মল্লিককে অনেকেই ভেবেছিলেন নৌকার কাণ্ডারি হিসেবে বাস্তবে দলের তৃনমূল নেতাকর্মীদের সাথে তার যোগাযোগ নেই বললেই চলে এমনটাই বলেছেন বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের নেতৃস্থানীয় নেতারা।

এছারাও কোন কোন মহল মনে করেন মেজর জেনারেল অবঃ আবদুল হাফিজ মল্লিক, বয়সের ভারে অনেকটাই নিস্তেজ তিনি, দলীয় নেতা কর্মীদের সঙ্গেও তেমন আত্মরিকতা নেই এই প্রবীণ নেতা ও আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম ও সাবেক সেনা কর্তার।

স্থানীয় জনগন ও নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে সার্বিক খোজ খবরে জানা গেছে- বরিশালে রাজনীতির অঙ্গনে জনপ্রিয় এক ‘আলোচিত’ নাম মুজিব অন্তঃ প্রাণ ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল হক মঞ্জু। এখানকার রাজনীতির আকাশে জ্বল জ্বল করে জ্বলে থাকা ‘তারকা’ এ নেতা স্বল্প সময়ের মধ্যে তার মেধা,মনন,প্রজ্ঞা ও রাজনৈতিক দূরদর্শিতা দিয়ে শুধু বাকেরগঞ্জ নয় গোটা বরিশালে আওয়ামী রাজনীতির ‘আইকনে’ পরিণত হয়েছেন। তিনি একজন উচ্চ শিক্ষিত  প্রকৌশলী, দানশীল ব্যক্তিত্ব,শিক্ষানুরাগী,সমাজসেবী ও সাদা মনের মানুষ হিসেবে সর্বমহলে সুপরিচিত ও সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। বর্তমানে আওয়ামীলীগের হাইকমান্ড, গোয়েন্দা তালিকা ও জনগনের জনমত জরীপে সব চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল হক মঞ্জু ।

ছবিঃ ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল হক মঞ্জু

দলের মধ্যে কেউ কেউ বলে থাকেন বাকেরগঞ্জে আওয়ামীলীগের বয়সের ভারে নুয়ে পরা নেতৃত্বের মাঝে উজ্জিবীত নেতৃত্বদানে মঞ্জরুল হকই একমাত্র ভরসা।

সেই হিসেবে বর্তমানে সাংগঠনিক ভাবে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে সব চেয়ে বেশী সম্পর্ক রয়েছে বুয়েটের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, বর্তমানে তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট ,আইইবি, আওয়ামিলিগ  কেন্দ্রিয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক ও ইঞ্জিনিয়ারিং ইউস্টিটিউটের সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মঞ্জুরুল হক মঞ্জু’র সাথে।নিতি নিয়মিত এলাকার সকল কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থেকে দলকে মনোবল যুগিয়েছেন বিগত কয়েক বছর ধরে,আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেরা ফুল বেছে নেওয়ার বক্তব্যের সাথে মিলিয়ে দেখলে বাকেরগঞ্জের সব চেয়ে ক্লিন ইমেজের প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম।

 

তিনি বড় দুই দেলের মাঝে জনপ্রিয়তায় দলমত নির্বেশেষে জনপ্রিয়তায় সকল প্রার্থীর শীর্ষে রয়েছেন বলে স্হানীয়দের মাঝে জরীপে জানা গেছে, তার সাথে গত কয়েক বছর ধরে উপজেলা আওয়ামীলীগ তৃনমূল থেকে সকল স্থরের নেতাকর্মীদের সাথে বেশ সখ্যতা এবং জনগণ ও তার আচরনে আকৃষ্ট। বিগত কয়েক বছরে ইন্জিনিয়ার মঞ্জুরুল হক উপজেলার সকল শ্রেণীর জনমানুষ সহ সকল এলাকায় বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মিয় অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগে এক মাত্র প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিথ ছিলেন । 

উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শামসুল আলম চুন্নু, যিনি দানবীর হিসেবে জন মানুষের কাছে পরিচিত ছিলেন, তিনি তার বিতর্কিত কিছু কর্মকান্ডের কারণে দলীয় নেতাদের কাছে চরম অপ্রিয় হিসেবে এখন পরিচিত।

এছারাও জেলা পরিষদের সদস্য প্রয়াত এমপি আলহাজ্ব সৈয়দ মাসুদ রেজার সহধর্মীনি আইরিন রেজা, শিল্পপতি ও আওয়ামীলীগ নেতা ফারুক আলম তালুকদার ও বঙ্গবন্ধু সৈনিকলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ডক্টর মোয়াজ্জেম হোসেন মাতুব্বর আমিনুল ও মনোনয়ন প্রত্যাশী বলে জানা গেছে।

সব দলের প্রার্থীরা তাদের মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয়ভাবে শুরু করেছেন ব্যাপক লবিং-তদবীর।

এই আসনের জনগন দলমত নির্বিশেষে সাবেক বুয়েট ছাত্রলীগ নেতা ও দেশের ইন্জিনিয়ারদের কন্ঠস্বর সদানন্দময়ী ও সদালাপী মন্জুরুল ইসলামকেই দেখার অপেক্ষায় আছেন শেষ মুহুর্তে বাকেরগঞ্জ উপজেলার নৌকার মাঝি হিসেবে।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *